জরায়ু নিচে নেমে গেলে ব্যায়াম

জরায়ু নিচে নেমে গেলে ব্যায়াম

মেয়েদের শরীরের গুরুত্বপূর্ণ একটি অঙ্গ হচ্ছে জরায়ু আর এই জরায়ু বয়স জনিত কারণে কিংবা অন্যান্য কারণে দিন দিন বড় হয়ে যায় ইন্টারনেটে অন্যতম একটি প্রশ্ন হলো জরায়ু নিচে নেমে গেলে ব্যায়াম তো চলুন এই প্রশ্নটির সঠিক উত্তর জেনে নেই এবং জরায়ুর টাইট করার বিভিন্ন ক্রিম সম্পর্কে দেখে নেই ?

আরো পড়ুনঃ টাইটান জেল পুরুষের লিঙ্গ – দোন ইঞ্চি পর্যন্ত বড় মোটা করে

আরো পড়নঃ একটানা ৪০ মিনিট সেক্স করার স্প্রে

অনলাইনে ছেলেদের ও মেয়েদের যাবতীয় পার্সোনাল ও গোপনীয় পণ্যসামগ্রী সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কসমেটিক সামগ্রী দেশের সবচেয়ে কম দামে ক্রয় করতে ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট Www.gazivai.com

জরায়ু নিচে নেমে গেলে ব্যায়াম

■ কিছু মাংসপেশি ও লিগামেন্ট জরায়ুকে নির্দিষ্ট জায়গায় ধরে রাখতে সাহায্য করে। জন্মগতভাবে যদি কারও এ কাঠামো দুর্বল থাকে, তবে এ সমস্যা হতে পারে।

■ সন্তান প্রসবের সময় জরায়ুর মুখ সম্পূর্ণভাবে খোলার আগেই যদি অতিরিক্ত চাপ প্রয়োগ করা হয়।

■ প্রসবব্যথা যদি ১২ থেকে ১৬ ঘণ্টার বেশি স্থায়ী হয় এবং প্রসবকালে জরায়ু নিচের দিকে ছিঁড়ে যায়।

■ এক সন্তান নেওয়ার পর স্বল্প বিরতিতে আরেক সন্তান নিলে। দুই সন্তানের মধ্যে বয়সের ব্যবধান এক বছরের কম হলে ঝুঁকি বেশি।

আরো পড়নঃ ছেলেদের বীর্য ঘন করার হোমিও ঔষধ

আরো পরুনঃ মেয়েদের সেক্স পাওয়ার বাড়ানোর আধুনিক ঔষধ

■ বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে জরায়ুর মাংসপেশিসহ সহায়ক কাঠামো দুর্বল হয়ে পড়লে।

■ অনেক দিন ধরে কাশি, কোষ্ঠকাঠিন্য থাকলে।

■ প্রসব-পরবর্তী যত্ন সঠিকভাবে না নিলে এবং ভারী জিনিস ওঠানোর কাজ করলে।

জরায়ু নিচে নেমে গেলে কি কি সমস্যা হয়

জরায়ু নিচে নেমে গেলে কি কি সমস্যা হয়

● তলপেটে ও যোনিপথে কোনো কিছু নিচের দিকে নেমে যাওয়ার মতো অস্বস্তিকর অনুভূতি হলে।

● মাসিকের পথে জরায়ু বের হয়ে এলে।

● কোমরে ও সহবাসের সময় ব্যথা হলে।

● প্রস্রাব ঘন ঘন হওয়া বা প্রস্রাব অসম্পূর্ণ হওয়ার মতো অনুভূতি হলে।

● কোষ্ঠকাঠিন্য অথবা পায়খানা সম্পূর্ণ হয়নি বলে অনুভূত হলে।

● সাদা স্রাব বা লালচে স্রাব হলে।

জরায়ু নিচে নেমে গেলে হোমিও চিকিৎসা

জরায়ু নিচে নেমে গেলে হোমিও চিকিৎসা

জরায়ুর মুখ কিছুটা বা সম্পূর্ণ বেরিয়ে এলে অবশ্যই চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে। ব্যায়ামে (কেগেল এক্সারসাইজ) পেলভিক মাংসপেশি আবার শক্তিশালী হয়ে ওঠে। বয়স কম এবং সন্তান নিতে আগ্রহীদের ক্ষেত্রে জরায়ু আগের জায়গায় প্রতিস্থাপন করাই হলো চিকিৎসা। সন্তান নিতে আগ্রহী না হলে অথবা বয়স ৫০ বছরের বেশি এবং মাসিক বন্ধ হয়ে গেছে, এমন রোগীদের জরায়ু কেটে ফেলা হয়।

আরো পড়ুনঃ আর এফ এল কোম্পানি চাকরি ? মাসে বেতন কত

আরো পড়ুনঃ প্রান কোম্পানি চাকরি ? মাসে বেতন কত

আরো পড়ুনঃ তানিয়া নামের অর্থ কি | Tania namer ortho ki

জরায়ু নিচে নেমে গেলে কি করনীয়

■ সন্তান প্রসবের সময় পাশে অভিজ্ঞ ধাত্রী থাকা বা হাসপাতালে যাওয়া উচিত।

■ প্রসব-পরবর্তী সময়ে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে হবে। সাধারণভাবে বা অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে প্রসবের পর ছয় মাসের মধ্যে কোনো ভারী কাজ করা চলবে না।

■ প্রসব-পরবর্তী যথাসম্ভব দ্রুত স্বাভাবিক হাঁটাচলা শুরু করা উচিত।

আরো পরুনঃ অপু বিশ্বাসের মোবাইল নাম্বার

আরো পরুনঃ লম্বা হওয়ার উপায়: মাত্র দিনে লম্বা হবেন

জরায়ু নিচে নেমে গেলে কি করনীয়

■ জরায়ুর আশপাশের মাংসপেশিগুলোকে শক্তিশালী করার জন্য নির্দিষ্ট কিছু ব্যায়াম আছে। এগুলো নিয়মিত করা উচিত।

■ দীর্ঘমেয়াদি কাশি ও কোষ্ঠকাঠিন্য থাকলে চিকিৎসা করাতে হবে।

■ সঠিক জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণ এবং স্বল্প সময়ের ব্যবধানে সন্তান নেওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে।

ডা. শামীমা ইয়াসমিন, স্ত্রীরোগ ও প্রসূতিবিদ্যা বিভাগ, বিএসএমএমইউ

অনলাইনে ছেলেদের ও মেয়েদের যাবতীয় পার্সোনাল ও গোপনীয় পণ্যসামগ্রী সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কসমেটিক সামগ্রী দেশের সবচেয়ে কম দামে ক্রয় করতে ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট Www.gazivai.com

আরো পরুনঃ মেয়েদের যোনি – ছামা- ভোদা- গোপনাঙ্গ টাইট করার ক্রিম

আরো পরুনঃ মেয়েদের দুধ – ব্রেস্ট – ছোট করার ক্রিম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *