কনডমের দাম কত

কনডমের দাম কত

সরাসরি কিনতে ফোন করুন: 01751358525

সরাসরি কিনতে ক্লিক করুন এখনই কিনুন


সঠিক মাপের কনডমযৌন জীবনকনডম বা কন্ডোম (ইংরেজি: Condom) প্রধানত যৌনসংগমকালে ব্যবহৃত এক প্রকার জন্মনিরোধক বস্তু। এটি মূলত গর্ভারোধ ও গনোরিয়া, সিফিলিস ও এইচআইভি-এর মতো যৌনরোগের প্রতিরোধক হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এটি পুরুষদের উত্থিত পুরুষাঙ্গে পরানো হয়। রেতঃস্খলনের পর কনডম যৌনসঙ্গীর শরীরে বীর্য প্রবেশে বাধা দেয়। Condomজলাভেদ্য, স্থিতিস্থাপক ও টেকসই বলে একে অন্যান্য কাজেও লাগানো যায়। জলাভেদ্য মাইক্রোফোন তৈরি ও রাইফেলের ব্যারেল নোংরা পচা বস্তু দ্বারা বুজে যাওয়া আটকাতেও condom ব্যবহৃত হয়।

ম্যাজিক কনডম
ম্যাজিক কনডম

আধুনিক যুগে কনডম মূলত তরুক্ষীর থেকে প্রস্তুত করা হয়। তবে condom তৈরি ক্ষেত্রে অনেক সময় পলিআরথিন, পলিইসোথ্রিন বা ল্যাম্ব ইনসেসটাইনও ব্যবহৃত হয়। মহিলাদের কনডমওপাওয়া যায়। জন্ম নিয়ন্ত্রণের পদ্ধতি হিসেবে কনডম অত্যন্ত সুলভ, সহজে ব্যবহার্য, কমপার্শ্বপ্রতিক্রিয়াযুক্ত ও যৌনব্যাধি প্রতিরোধে সর্বাধিক কার্যকর।

সঠিক জ্ঞান ও ব্যবহার কৌশল এবং যৌনসংগমের প্রতিটি ক্রিয়ায় ব্যবহৃত হলে যেসব মহিলাদের পুরুষ যৌনসঙ্গীরা কনডম ব্যবহার করেন, তাঁরা বার্ষিক মাত্র ২ শতাংশ গর্ভাবস্থার সম্মুখীন হন।কনডম প্রায় ৪০০ বছর ধরে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। ঊনবিংশ শতাব্দী থেকেই condom ব্যবহার সর্বাপেক্ষা জনপ্রিয় জন্মনিরোধ পদ্ধতি। আধুনিক সমাজে কনডমের ব্যবহার ব্যাপক মান্যতা লাভ করেছে। যদিও যৌনশিক্ষা পাঠক্রমে কনডমের ব্যবহার ইত্যাদি প্রসঙ্গে কনডম নিয়ে কিছু বিতর্কও সৃষ্টি হয়েছে।

যৌনসঙ্গমে প্রকৃত তৃপ্তি পেতে হলে সঠিক মাপের কনডম নির্বাচন অবশ্য প্রয়োজনীয়। condom ঢিলে হলে যে শুধু লিঙ্গের সংবেদনশীলতা কমে যায় তাই নয়, যৌনসঙ্গমের সময় সেটা খুলে গিয়ে বিপত্তি বাধাতে পারে। আবার condom বেশি টাইট হলেও লিঙ্গের উপর চাপ সৃষ্টি করে যৌন আনন্দ কমিয়ে দেয়। উপরন্তু condom ফেটেও যেতে পারে। তাই সঠিক মাপের কনডম নির্বাচন শুধু যৌন আনন্দের জন্যেই নয়, যৌনরোগ ও অযাচিত গর্ভসঞ্চার রোধের জন্যেও অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।

দুঃখের বিষয় যে সবসময় সঠিক মাপের condom বাজারে পাওয়া যায়না। অনেকে আবার জানেই না বিভিন্ন সাইজের condom পাওয়া যায়। নিজের লিঙ্গের মাপ ও তার জন্য কোন মাপের কনডম সঠিক সেটাও জানা জরুরী। এই পোস্টে আমরা সঠিক মাপের condom কিভাবে নির্বাচন করতে হয় সেসম্মন্ধে আলোচনা করব।

dragon condom price in bangladesh
dragon condom price in bangladesh

প্রথমত বলছি লিঙ্গের মাপ কি করে নিতে হয় সে সম্মন্ধে। সেজন্য প্রথমে কোনভাবে (উত্তেজক গল্প পড়ে বা মুভি দেখে বা অন্য কোনভাবে) লিঙ্গ উত্তেজিত করে নিন। অতঃপর একটি শক্তপোক্ত গোছের সুতো নিয়ে সেই সুতোর একপ্রান্ত লিঙ্গের গোড়ায় এক হাত দিয়ে ধরুন এবং লিঙ্গের দৈর্ঘ্য বরাবর সুতো টেনে নিয়ে অগ্রভাগ পর্যন্ত নিয়ে যান। লিঙ্গেরঅগ্রভাগে সুতোতে একটি দাগ দিন। এরপর একটি স্কেল টেবিলের উপর রেখে তার পাশে সুতোটিকে মেলে ধরুন এবং সুতোর প্রান্ত থেকে দাগ দেওয়া অংশ পর্যন্ত দৈর্ঘ্য পরিমাপ করুন। ওই দৈর্ঘ্যই আপনার লিঙ্গের দৈর্ঘ্য। এবারে লিঙ্গের পরিধি মাপতে হবে।

কনডমের সাইজ নির্বাচনের জন্য লিঙ্গের পরিধি বেশি গুরুত্বপূর্ণ। সেজন্য উত্তেজিত অবস্থায় লিঙ্গের সবথেকে মোটা অঞ্চলে সুতোটির একপ্রান্ত আঙ্গুল দিয়ে চেপে সুতোটিকে লিঙ্গের পরিধি বরাবর ঠিক একপাক দিয়ে যেখানে সুতোর প্রান্ত আঙ্গুল দিয়ে চেপে আছেন সেখান পর্যন্ত নিয়ে আসুন ও সেই স্থানে সুতোটিতে একটি দাগ দিন। এরপর একটি স্কেল টেবিলের উপররেখে তার পাশে এই সুতোটিকে মেলে ধরে সুতোর প্রান্ত থেকে দাগ দেওয়া অংশ পর্যন্ত দৈর্ঘ্য পরিমাপ করুন।

যে দৈর্ঘ্য পাবেন সেটাই আপনার লিঙ্গের পরিধি বা girth। নিজের সঙ্গিনীর সাহায্য নিয়ে লিঙ্গের সাইজ মাপার ব্যাপারটিকে রোমাঞ্চকর করতে পারেন। এবারে আমরা সঠিক মাপের কনডম বেছে নিতে পারব।বানিজ্যিকভাবে তৈরি কনডমের প্যাকেটে ওই কনডমের দৈর্ঘ্য (Length) ও প্রস্থ (nominalwidth) লেখা থাকে। যে কনডম ব্যবহার করবেন তার প্রস্থ কতটা হবে সেটা জানতে প্রথমে আপনার লিঙ্গের পরিধিকে 0.9 দিয়ে গুণ করুন।

অতঃপর যে সংখ্যা পাবেন তাকে 2 দিয়ে ভাগ করুন। তাহলেই আপনার লিঙ্গের জন্য প্রয়োজনীয় কনডমের সঠিক প্রস্থ আপনি পেয়ে যাবেন। পরিষ্কার করে বোঝানোর জন্য একটি উদাহরণ দিচ্ছি। ধরুন আপনার লিঙ্গের পরিধি 4.5 ইঞ্চি।তাহলে আপনার জন্য প্রয়োজনীয় কনডমের সঠিক প্রস্থ হবে = \frac{0.9\times 4.5}{2} = 2.025 ইঞ্চি (51 mm)। সহজ হিসেব হল আপনার লিঙ্গের পরিধি যত ইঞ্চি তাকে 11.43 দিয়ে গুণ করলেই মিলিমিটারে সঠিক মাপের কনডম -এর প্রস্থ বেরিয়ে যাবে।

ম্যাজিক কনডম এর উপকারিতা
ম্যাজিক কনডম এর উপকারিতা

সরাসরি কিনতে ফোন করুন: 01751358525

সরাসরি কিনতে ক্লিক করুন এখনই কিনুন

এখন থেকে কনডম কেনার সময় প্যাকেটে লেখা দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ দেখে কিনবেন। তবে সবসময় যেএকেবারে নিজের প্রয়োজনীয় সঠিক সাইজ পাবেন তার কোন ঠিক নেই। তাই যে সাইজ আপনার সাইজের সবথেকে কাছাকাছি সেটাই কিনুন। বাজারে সবথেকে বেশি প্রচলিত “রেগুলার” সাইজের condom , যাদের প্রস্থ প্রায় 52 থেকে 53 mm। এটা তাদের জন্য উপযুক্ত যাদের লিঙ্গের পরিধি 4.7 থেকে 5.1 ইঞ্চি পর্যন্ত। লিঙ্গের পরিধি এর থেকে বেশি হলে “লার্জ” সাইজের কনডম ও লিঙ্গের পরিধি এর থেকে কম হলে “স্মল” সাইজের কনডম উপযুক্ত।

তবে সবসময় কনডম প্যাকেটে “লার্জ”, “রেগুলার” বা “স্মল” লেখা থাকেনা। তাই কনডমে লেখা দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ দেখে condom কিনুন।
মহিলা এবং পুরুষ উভয়ের ব্যবহারের জন্যই কনডম
( condom ) পাওয়া যায়। তবে পুরুষ কনডম সস্তা ,
সহজলভ্য এবং ব্যবহার করাও অপেক্ষাকৃত অনেক
সহজ। শুধু তাই নয় বাজারে বেশ কয়েক প্রকারের
পুরুষ কনডম পাওয়া যায়। আমরা এই পোস্টে কয়েকটি
ভিন্ন ধরনের কন্ডোমের কথা আলোচনা করব। মনে
রাখবেন একঘেয়েমি দূর করে বৈচিত্রের মধ্যে
আনন্দলাভের উদ্দেশ্যেই এই সকল বিভিন্ন প্রকার
কনডম তৈরি করা হয়েছে।

১ . ডটেড কনডম ( Dotted condom ) : এই রকম কন্ডোমের বাইরের বা ভেতরের গায়ে কিংবা উভয় পাশেই কিছু পরিমাণ ছোট এবং উচু ডট লাগানো থাকে। এর ফলে যোনির সাথে ঘর্ষণ বেশি হয় এবং পুরুষ -নারী দুজনেরই যৌন আনন্দ বৃদ্ধি পেতে পারে। তবে অনেকে ওই ডটগুলিকে অনুভবই করতে পারে না। আবার কারও কারও ওই ডটগুলির উপস্থিতির জন্য ব্যাথাও অনুভব হয়। কাজেই যদি ডটেড কনডম ব্যবহারের সময় ব্যাথা বা অস্বস্তি অনুভব হয় তবে এইরকম কনডম ব্যবহার না করাই ভাল।

মেজিক কনডমের দাম কত
মেজিক কনডমের দাম কত বিস্তারিত জানুন

২ . রিবড কনডম ( Ribbed condom ) : ডটেড কন্ডোমের মতই এই কন্ডোমের গায়ে পাঁজরের মত কিছু পরিমাণ খাঁজ থাকে। ওইগুলোর উদ্দেশ্যও যৌন আনন্দ বৃদ্ধি।তবে এই কনডমও সকলের ভাল না লাগতে পারে।

৩ . ফ্লেভারড কনডম ( Flavoured condom ) : এইগুলো মূলত ওরাল সেক্সের জন্য তৈরি। তার মানে কিন্তু এই নয় যে নর্ম্যাল সেক্সের জন্য এইসব কনডম ব্যবহার করা যাবে না ! নাম থেকেই বোঝা যাচ্ছে এই সকল কন্ডোমে বিভিন্ন ধরনের খাদ্যের সুগন্ধ মাখানো থাকে। যেমন ( আশানুরূপভাবেই) কলা ফ্লেভার ,চকোলেট ফ্লেভার , স্ট্রবেরি ফ্লেভার , আপেল ফ্লেভার ইত্যাদি। এমনকি এই উপমহাদেশের বিশেষ এক শ্রেণীর লোকের কথা মাথায় রেখে পান ফ্লেভারের কনডমও তৈরি করা হয়েছে।

৪ . লং লাস্টিং কনডম ( Long lasting condom ) : কিছু কিছু কন্ডোমে এক বিশেষ ধরনের রাসায়নিক মাখানো থাকে যার প্রভাবে লিঙ্গের সংবেদনশীলতা কমে যায় এবং বীর্যস্খলন বিলম্বিত হয়। শীঘ্রপতন দূরীকরণে এই কনডম কাজে লাগতে পারে। তবে কিছু ক্ষেত্রে দেখা যায় যে কন্ডোমে লাগানো ওই বিশেষ রাসায়নিক লিঙ্গের সংবেদনশীলতা এতটাই কমিয়ে দেয় যে লিঙ্গ শীথিল হয়ে যায়। কাজেই ব্যবহারের সময় যদি এমন কোন অসুবিধা হয় তাহলে এইসব কনডম আপনার জন্য নয়।

৫ . আলট্রা থিন কনডম ( Ultra thin condom ) : থিন কন্ডোমের বেধ অন্যান্য কন্ডোমের তুলনায় কম। প্রস্তুতকারক বিভিন্ন সংস্থা দাবী করে যে ওইগুলো পড়লে সঙ্গমের সময় আরও কাছাকাছি আসা যায় ! সরু হওয়াতে সঙ্গমের সময় তাপ পরিবহন সহজে হয় এবং ঘর্ষন বল একটু বেশি অনুভব হওয়ার দরুন বেশি আনন্দ অনুভব হতে পারে। তবে আনন্দ ব্যাপারটা ব্যক্তিবিশেষের উপর নির্ভর করে। তাই আলট্রা থিন কনডম ব্যবহার করলেই আনন্দ বেশি হবেই এমন আশা করা ঠিক নয়। ব্যবহার করে দেখ। যদি ভাল লাগে তো চালিয়ে যাও।

৫ . সাধারণ কনডম ( ordinary condom ) : এগুলি অতিসাধারণ , কোন ফ্লেভার , রিব বা ডট ছাড়া কনডম। সাধারণ হলেও গর্ভসঞ্চার রোধে কিন্তু বাকিদের সমান কার্যকরী।

love toy condom
love toy condom

৬ . স্পার্মিসাইড যুক্ত কনডম ( Spermicide condom :কিছু কিছু কন্ডোমে nonoxynol – 9 নামের এক বিশেষ লুব্রিকেন্ট লাগানো থাকে যা নাকি স্পর্মিসাইড হিসেবে কাজ করে। উল্লেখ্য যে স্পার্মিসাইড হল এক বিশেষ ধরনের রাসায়নিক যার প্রভাবে বীর্যস্খলনের ফলে নির্গত স্পার্ম মরে যায়। বিগত কালে এটা ভাবা হত যে কন্ডোমে স্পার্মিসাইড লাগানো থাকলে তা গর্ভসঞ্চার রোধে আরও বেশি কার্যকরি হবে। কিন্তু আধুনিক গবেষণায় দেখা গেছে যে কন্ডোমে লাগানো ওই স্পার্মিসাইড বস্তুত কোন কাজেই আসেনা। উপরন্তু nonoxynol – 9এইচ. আই .ভি . সংক্রমণের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়।তাই বেশিরভাগ কনডম প্রস্তুতকারী সংস্থাই এই রাসায়নিক ব্যবহার বন্ধ করে দিয়েছে।

৬ . ল্যাটেক্স কনডম ( Latex condom ) : নাম থেকেই বোঝা যায় যে এগুলো প্রাকৃতিক ল্যাটেক্স ( এক ধরনের রাবার) দিয় তৈরি। ল্যাটেক্সের স্থিতিস্থাপকতা খুব বেশি। ল্যাটেক্স কনডম সস্তা ,নির্ভরযোগ্য এবং সহজলভ্য। তবে এইসকল কনডম ব্যবহারের সময় কিছু সাবধানতা অবলম্বন করতে হয়। তেল জাতীয় লুব্রিকেন্ট যেমন পেট্রোলিয়াম জেলি , রান্না করার বা গায়ে মাখার তেল , কোল্ড ক্রীম , বেবি লোশন, সানস্ক্রীন লোশন ইত্যাদির সংস্পর্শে এলে ল্যাটেক্স দ্রবীভূত হয়

ল্যাটেক্স কনডম ফেটে যেতে পারে। ল্যাটেক্স কন্ডোমের সাথে ব্যবহারের উপযোগী লুব্রিকেন্ট হল জল দিয়ে তৈরি লুব্রিকেন্ট ( water based lubricant ) যেমন KY Jelly বা Liquid Silk। তবে অনেকেরই ল্যাটেক্স কনডম থেকে এলার্জি হতে পারে। এলার্জি হলে যৌনাঙ্গে চুলকানি ও জ্বালা করে। যদি এলার্জি হয় তবে ল্যাটেক্স কনডম ব্যবহার বন্ধ করে দেওয়া উচিৎ।

৭ . পলিইউরেথিন কনডম ( Polyurethin condom ) : এই কনডম ল্যাটেক্স কন্ডোমের বিকল্প। পলিইউরেথিন
নামের কৃত্রিম রাসায়নিক দিয়ে এইসকল কনডম তৈরি করা হয়। ল্যাটেক্সের তুলনায় এই কন্ডোমের কিছু সুবিধে রয়েছে। যেমন পলিইউরেথিন কন্ডোমের সাথে তেল জাতীয় লুব্রিকেন্ট ব্যবহার করা যেতে পারে , এলার্জি হবার সম্ভাবনা কম,ল্যাটেক্সের তুলনায় তাপ সহজে পরিবহন করে ( তাপ পরিবহনের সুবিধে কি সেটা আশা করি লিখে বোঝাতে হবে না ) । তবে ল্যাটেক্সের তুলনায় পলিইউরেথিন কম স্থিতিস্থাপক , অপেক্ষাকৃত সহজে পিছলে বা ছিড়ে যেতে পারে , দাম বেশি এবং তুলনামুলকভাবে সহজেই গুটিয়ে যেতে পারে।

magic condom
magic condom

৮ .পলিআইসোপ্রীন কনডম ( Polyisoprene condo) :পলিআইসোপ্রীন কৃত্রিম উপায়ে সংশ্লেষিত এক বিশেষ ধরনের রাবার যার মধ্যে প্রাকৃতিক ল্যাটেক্সের গুণাগুন রয়েছে। যেমন এর স্তিতিস্থাপকতা ল্যাটেক্সের মতই অত্যন্ত বেশি। তবে পলিআইসোপ্রীন দিয়ে তৈরি কনডম থেকে সাধারণত কারও এলার্জী হয় না এবং এর তাপ পরিবহন ক্ষমতাও ল্যাটেক্সের থেকে বেশি। তবে ল্যাটেক্সের মতই এই কন্ডোমের সাথেও তেল জাতীয় লুব্রিকেন্ট ব্যবহার করা উচিৎ নয়।পলিআইসোপ্রীন কন্ডোমের দাম সাধারণত ল্যাটেক্সে এবং পলিইউরেথিন কন্ডোমের তুলনায় বেশি হয়।জামাকপড়ের মতই কনডমও বিভিন্ন সাইজে তৈরি করা হয়। লিঙ্গের দৈর্ঘ্য প্রস্থের উপর নির্ভর করে সঠিক সাইজের কনডম ব্যবহার করা উচিৎ।

যেমন লিঙ্গের দৈর্ঘ্য ৫ ইঞ্চির থেকে কম ও পরিধি ৪ . ৭ ইঞ্চির কম হলে “ স্মল ” সাইজের কনডম ব্যবহার করা উচিৎ। যদি লিঙ্গের দৈর্গ্য ৫ থেকে ৭ ইঞ্চি এবং পরিধি ৪ . ৭ – ৫ . ১ ইঞ্চির মাঝে হয় তবে“ স্ট্যান্ডার্ড” সাইজের কনডম সঠিক ফিট হবে। আর যদি আপনি বিশালাকার যন্ত্রের আধিকারী হন ,মানে আপনার লিঙ্গের দৈর্ঘ্য ৭ ইঞ্চির বেশি এবং পরিধি ৫ ইঞ্চির থেকে বেশি হয় তবে “ লার্জ ”সাইজের কনডম ব্যবহার করা উচিৎ। তবে দূর্ভাগ্যবশঃত এইরূপ বিভিন্ন সাইজের কনডম বাজারে অনেক সময়ই পাওয়া যায় না। কাজেই যেটা পাওয়া যাচ্ছে সেটা ব্যবহার করা ছাড়া আর কোন গত্যন্তর থাকেনা।প্রতিনিয়ত নতুন নতুন ব্রান্ডের কনডম তৈরি হচ্ছে। তাই কত ধরনের তা বলা মুশকিল। তবে বিভিন্ন ফ্লেভারের কনডম পাওয়া যায়।


বর্তমানে উপমহাদেশে ম্যনফোর্স কনডম সবচেয়ে ভাল। এগুলা ব্লু বেরি,স্ট্রবেরি, ব্লাকবেরি ইত্যাদি ফ্লেভারের পাওয়া যায়। এটা ৮০ টাকা থেকে ২৫০০ টাকা পর্যন্ত হয়।দেশী কনডম গুলোর মধ্যে সোশ্যাল মার্কেটিং কোম্পানি (এসএমসি) এর কনডমের চাহিদা বেশী। কিন্তু সম্প্রতি কনডমের দাম লাগামহীনভাবে বৃদ্বি পাচ্ছে। নিম্নে এসএমসি এর সেরা কয়েকটি কনডম নিয়ে আলোচনা করা হলো:
১.প্যানথার: এসএমসি এর প্যানথার কনডম ৮০দশক থেকে জনপ্রিয়। বর্তমানে প্যানথার ডটেড কনডম বেশ জনপ্রিয়। প্যানথার কনডমগুলোর ফিটিংভালো।
২. স্যানসেশন: দেশী কনডমগুলোর মধ্যে এসএমসি এর স্যানসেশন কনডমও বেশ জনপ্রিয়।স্যানসেশন ক্ল্যাসিকের পাশাপাশি ফ্লেভারের মধ্যে চকলেট এবং স্ট্রবেরী বেশ জনপ্রিয়। ফ্লেভারড কনডমগুলো ডটেড। কনডমগুলোর ফিটিং বেশ ভালো।
৩. ইউ এন্ড মি: এসএমসি এর ইউ এন্ড মি কনডমটিও বেশ জনপ্রিয়। এই ব্রান্ডের কনডমগুলো বেশ পাতলা এবং ফিটিংও ভালো। এই ব্রান্ডের ৩টি ফ্লেভারের কনডম পাওয়া যায়। ফ্লেভারগুলো হলো:এনাটমিক (Anatomic), লং লাভ (Long Love) এবং কলোন (Colone)। এছাড়া ‘হিরো’ এবং‘রাজা’ কনডম বিভিন্ন ফার্মেসীতে পাওয়া যায়। দাম ১০ টাকা থেকে 250 টাকা ও রয়েছে।বাংলাদেশে ভালো কনডম হচ্ছে প্যানথার|এটি খুব ভালো মানের এবং বহুল প্রচলিত।এর প্রতি প্যাকের মূল্য ১৫টাকা।১ প্যাকে ৩টা কনডম থাকে|প্রতি পিস কনডমের দাম ৫টাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *